এক টুকরো রুটির জন্য জুতা পালিশ!

আফগানিস্তানের এখন যেখানেই যাওয়া হোক না কেন শিশু শ্রমিকদের দেখতে পাওয়া যায়। গাড়ি পরিষ্কার, আবর্জনার স্তূপ থেকে কিছু সংগ্রহ, জুতো পালিশ থেকে শুরু করে নানা ধরনের কাজ করছে তারা।

নিজের ও পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতেই বই-খাতা ছেড়ে উপার্জনের পথে নামতে তাদের এ চেষ্টা। ১৩ বছর বয়সি পারভেজ।

রাজধানী কাবুলে পরিবারের সঙ্গে সে থাকে। প্রতিদিন সকাল ৮টার দিকে কাজে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বাইরে যায় সে।

মাত্র কয়েক মাস আগেই পারভেজ এবং তার চাচাতো ভাই জুতো পালিশের কাজ শুরু করে। মঙ্গলবার প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে বিবিসির প্রতিবেদককে পারভেজ বলে, ‘আমি প্রতিদিন ৫০ থেকে ১০০ আফগানি টাকা আয় করি।

আগে আমি ১৫০ আফগানি টাকা আয় করলেও এখন কাজে খুব মন্দা চলছে। যখন আমার বাবার চাকরি চলে যায় তখন থেকে আমি স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে টাকা উপার্জন করতে শুরু করি। এখন সবকিছুরই দাম আকাশছোঁয়া। এক বস্তা আটার দাম ৩ হাজার আফগানি টাকা, তেলের দাম ৩ হাজার ৫০০ আফগানি টাকা।’

পারভেজ আরও বলে, ‘লোকজন তাদের জুতো আমাদের দিয়ে পালিশ না করালে আমার খুব খারাপ লাগে। তারা জুতা পালিশ করালেই আমরা দুই থেকে তিন টুকরা রুটি কিনতে পারি। মাঝে মধ্যে কাজ না থাকায় আমাকে খালি হাতে বাড়ি ফিরতে হয়।’

About admin

Check Also

ভ্যানে করে বাড়ি ফিরছিলেন, গৃহবধূকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ

চুয়াডাঙ্গায় ব্যাটারিচালিত ভ্যান থেকে গৃহবধূকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করেছেন তিন যুবক। এই ঘটনায় গত সোমবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *